সোমবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২৩, ১০:১৭ অপরাহ্ন

মতলবগঞ্জ পাইলট বালিকা উচ্চবিদ্যালয় প্রশ্নপত্রে অক্ষর ছোট; মারামারি করলেন অভিবাবক সদস্যরা

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ২১ জুন, ২০২৩
  • ১৪৩ Time View

তানজিমুল হাসান মায়া’জ, চাঁদপুর মতলবঃ
প্রশ্ন পত্রের লেখা ছোট হওয়াকে কেন্দ্র করে মারামারি ঘটনা ঘটেছে চাঁদপুর জেলার মতলব দক্ষিণ উপজেলার মতলবগঞ্জ পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে। প্রশ্নে উল্লেখিত লেখার (ফন্ট সাইজ) আকার ছোট হওয়াকে কেন্দ্র করে অভিবাবক সদস্যদের মধ্যে উচ্চবাক্য ও মারামারির ঘটনা ঘটেছে।

স্কুল সূত্রে জানা যায়, ৭ জুন বিদ্যালয়টির চলমান অর্ধবার্ষিকি পরীক্ষার অংশ হিসেবে নবম শ্রেণীর ইংরেজি পরীক্ষা শুরু হওয়ার ৫ মিটিন আগে প্রশ্নপত্র নিয়ে সহকারী প্রধান শিক্ষক মনিরুল ইসলামের কাছে অক্ষর ছোট হওয়ার বিষয়ে জানতে চান অভিবাবক সদস্য আল-মহসিন প্রধান । বিষয়টিকে কারিগরী ত্রুটি হিসেবে উল্লেখ করে প্রশ্নপত্র বুঝতে সহযোগীতা করতে শিক্ষকদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে বলে মহসিন প্রধানকে জানান সহকারী প্রধান শিক্ষক। বিষয়টিকে তিনি অস্বাভাবিক উল্লেখ করে পরীক্ষার্থীদের ৩ নাম্বার হলে ছুটে গিয়ে শিক্ষার্থীদের হল থেকে বেরিয়ে যেতে নির্দেশ দেন। এমন ঘটনায় উত্তেজিত না হতে মহসিন প্রধানকে অনুরোধ করতে এগিয়ে যান অপর একজন অভিবাবক সদস্য ইকবাল সরকার।

বিদ্যালয়টির অভিবাবক সদস্য ইকবাল সরকার জানান, উত্তেজনা থামাতে মহসিন প্রধানের হাত ধরলে তিনি ক্ষিপ্ত হয়েতার মুখে আঘাত করলে তাৎক্ষনিক দুজন হাতাহাতিতে জড়িয়ে যান । এসময় দুজনের গায়ে আঘাতপ্রাপ্ত হয়ে স্থানীয় স্বাস্থ্য কেন্দ্রে চিকিৎসা গ্রহণ করেন। ঘটনার শুরুতে উত্তেজিত মহসিন প্রধানের কর্মকান্ডের গতিবিধি ও সহকারী প্রধান শিক্ষকের সামনে প্রশ্ন ছুড়ে ফেলার ভিডিও চিত্র বিদ্যালয়ের সিসিটিভি ফুটেজে রেকর্ড আছে বলে জানিয়েছেন মতলবগঞ্জ পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক মনিরুল ইসলাম। ঘটনার পর বিষয়টিকে স্পর্শকাতর হিসেবে গ্রহণ করে একটি ৩ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক।

এদিকে মারামারির ঘটনায় অভিবাবক সদস্য ইকবাল সরকারকে অভিযুক্ত করে আমলী আদালত মতলব দক্ষিণে একটি মামলার আবেদন করেন অপর অভিবাবক সদস্য আল-মহসিন প্রধান। মামলার আবেদনে মহসিন প্রধান উল্লেখ করেন ঘটনার দিন নবম শ্রেণীর প্রশ্নে অক্ষর ছোট হওয়ায় প্রশ্ন বাতিল করার অভিযোগ করলে অভিযুক্ত ইকবাল সরকার তার সাথে তর্কে জড়িয়ে পরবর্তীতে কিল ঘুষি মেরে তাকে নীলাফুলা জখম করে। চোঁখে আঘাতের কথা উল্লেখ করে মহসীন সরকার অভিযোগ করেন , অভিযুক্ত তাকে হত্যার উদ্দেশ্যে গলায় চেপে ধরেন। তবে ঘটনা ও মামলার আবেদনের বিষয়ে জানতে মহসিন প্রধানের সাথে একাধিকবার কথা বলতে চাইলেও তিনি নানা অজুহাত দেখিয়ে কথা বলতে রাজি হননি।

মতলবগঞ্জ পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ৭ জুনের ঘটনা বর্ণনা করতে গিয়ে বিদ্যালয়টির অফিস সহায়ক সুমন বলেন, একজন বর্তমান পৌর কাউন্সিলর ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি , তিনি যেভাবে বলবেন সকল বিষয় সেভাবেই চলবে। আদালতে মামলার আবেদনের বিষয়েও কাউন্সিলরের সিদ্ধান্তই সর্বোচ্চ সিদ্ধান্ত বলে স্বেচ্ছায় বর্ণনা করেন তিনি। এদিকে পরীক্ষা পরিচালনা কমিটির সদস্য মোজাহের হোসেন বলেন , আমরা সাধারণত পরীক্ষা শুরুর ২০ মিনিট আগে প্রশ্নপত্রের খামটি খুলে গনণা ও হলে পৌঁছে দিতে শিক্ষকদের মাঝে বিতরণ করি। একই ধারাবাহিকতায় ঘটনার দিন ৯ম শ্রেণীর ইংরেজী পরিক্ষার ঠিক পাঁচ মিনিট আগে হলে প্রশ্নপত্র পৌঁছানোর সাথে সাথে দায়িত্বরত শিক্ষকের কাছ থেকে প্রশ্নের ১ টি কপি ছিনিয়ে নিয়ে সহকারী প্রধান শিক্ষকের কক্ষে ছুটে আসেন অভিবাবক সদস্য মহসিন প্রধান।সহকারী প্রধান শিক্ষকের কক্ষ থেকে বেরিয়ে পূণরায় ৩ নম্বর হলে প্রবেশ করলে অভিবাবক সদস্য ইকবাল সরকার তাকে শান্ত করতে এগিয়ে গেলে মহসিন প্রধান তার উপর চড়াও হন।

একই ঘটনার কথা বর্নণা করেন অপর একজন অভিবাবক সদস্য নাজমুল হোসেন। বিদ্যালয়ের গণিত বিভাগের শিক্ষক মো: নুরুজ্জামান ও ইংরেজী বিভাগের শিক্ষক মনির হোসেনও একই ঘটনা হুবহু বর্ণনা করেন। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ক্লাসরুমে হঠাৎ এমন আকস্মিক ঘটনায় জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন প্রায় ১০ থেকে ১২ জন শিক্ষার্থী। এমনটাই জানিয়েছেন বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক মনিরুল ইসলাম। পরবর্তীতে সেসব শিক্ষার্থীদের স্থানীয় হাসপাতাল থেকে প্রাথমিক চিকিৎসা প্রধান করে পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করাতে সক্ষম হন । আলোচিত এ ঘটনায় একটি তদন্ত কমিটি ঘঠন করা হয়েছে বলে উল্লেখ করে বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি পৌর কাউন্সিলর লিখন সরকার বলেন, তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশের পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এদিকে এমন স্পর্শকাতর ঘটনার বিষয়ে লিখিত কোন অভিযোগ পাননি বলে জানিয়েছেন, মতলব দক্ষিণ উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা শাহ আলী রেজা আশরাফি। তবে তিনি মৌখিক ভাবে শুনেছেন উল্ল্যেখ করে বলেন, আমার মেয়ের ভর্তি পরীক্ষার কাজে ঢাকায় যাচ্ছি, ফিরে এসে বিষয়টি নিয়ে স্কুল কর্তৃপক্ষের সাথে বসবো।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category
© All rights reserved © 2019 bhabisyatbangladesh
Developed by: A TO Z IT HOST
Tuhin