বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৮:৪৭ অপরাহ্ন

রাশিয়ার সস্তা তেলই বাঁচিয়ে দিলো ভারতকে

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ১২ আগস্ট, ২০২২
  • ৪৮ Time View

সত্যি কথা বলতে কী, রাশিয়াই বাঁচিয়ে দিলো ভারতকে। সস্তায় তেল দিয়ে। নাহলে ভারতে তেলের দাম কমা দূরে থাক, অনেকটা বেড়ে যেত।

একটা সময় ছিল, যখন ভারতে লাগাতার ১২ দিন ধরে পেট্রোল ও ডিজেলের দাম বেড়েছিল। সবমিলিয়ে দিন পনেরোর মধ্যে সম্ভবত ১৪ বার তেলের দাম বাড়ানো হয়েছিল। তেলের দাম লিটারে একশ টাকা ছাড়িয়ে গিয়েছিল। তারপর পেট্রোল-ডিজেলের সেঞ্চুরি নিয়ে সামাজিক মাধ্যম ও মিডিয়ায় কম আলোচনা হয়নি। এমনও আলোচনা শুরু হয়েছিল, পেট্রোল-ডিজেলের দাম নিয়ে সরকার পুরো টেন্ডুলকরের ফর্মে ব্যাট করছে।

এই সমালোচনা যখন প্রবল হচ্ছে, তখনই এক ধাক্কায় পেট্রোল, ডিজেলের দাম লিটারপ্রতি সাড়ে নয় টাকা কমিয়ে দেয় সরকার। ফলে দিল্লিতে এখন পেট্রোল পাওয়া যায় লিটারে ৯৬ টাকার সামান্য বেশি দামে। এমন নয় যে আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দাম কমে যাওয়ায় সরকার এই সিদ্ধান্ত নিতে পেরেছিল। আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দাম কমেনি, বরং ইউক্রেনে রাশিয়ার আগ্রাসনের পর তা অনেকটাই বেড়ে গিয়েছিল।

তা সত্ত্বেও সরকার যে এই সিদ্ধান্ত নিতে পেরেছে তার কারণ রাশিয়া থেকে সস্তায় তেল পাওয়া। তেল, প্রাকৃতিক গ্যাস ও এলপিজির ক্ষেত্রে ভারত তার চাহিদার ৮০ থেকে ৮৫ শতাংশ আমদানি করে। ভারত এতদিন তেল-গ্যাসের বেশিরভাগটা কিনত মধ্যপ্রাচ্য থেকে। ৫২ দশমিক সাত শতাংশ এখান থেকেই আসত। ১৫ শতাংশ আসত আফ্রিকা থেকে এবং অ্যামেরিকা থেকে ১৪ শতাংশ। মাত্র দুই শতাংশ তেল রাশিয়া থেকে আসত।

এই পরিস্থিতির রাতারাতি বদল হয়ে গেল ইউক্রেনে রাশিয়ার হামলার পর। ইউরোপ রাশিয়া থেকে তেল ও গ্যাস কেনা কমিয়েছে, রাশিয়াও তাদেরকে কম তেল ও গ্যাস সরবরাহ করছে। মার্কিন নিষেধাজ্ঞার পর বাকি দেশগুলিতেও রাশিয়ার তেল ও গ্যাস অনেক কম যাচ্ছে বা যাচ্ছেই না। রাশিয়ার থেকে তেল এখন মূলত নিচ্ছে ভারত ও চীন। আমরা জানি, অর্থনীতির হিসাব-নিকাশ খুবই নীরস। কিন্তু প্রকৃত অবস্থা বুঝতে গেলে এই হিসাবের দিকে তাকানোটাও খুবই জরুরি।

২০২১ সালে এপ্রিল-মে মাসে রাশিয়া থেকে মাত্র ৪৪ কোটি ১০ লাখ ডলারের তেল কিনেছিল ভারত। আর ২০২২-এ শুধু মে মাসেই ১৯০ কোটি ডলারের তেল কিনেছে ভারত। আগে বছরে চাহিদার মোট দুই শতাংশ রাশিয়া থেকে আসত। এবার এপ্রিল-মে মাসে চাহিদার ১০ শতাংশ তেল রাশিয়া থেকে এসেছে। যত সময় গড়াচ্ছে, ততই রাশিয়া থেকে তেল আনার পরিমাণও বাড়ছে। কারণ রাশিয়া সস্তায় তেল দিচ্ছে।

কতটা সস্তা? এনিয়ে ভারত সরকার মুখ খোলেনি। তবে আন্তর্জাতিক স্তরের হিসাব হলো, মধ্যপ্রাচ্য থেকে যে দামে তেল কেনে ভারত, তার তুলনায় ব্যারেল প্রতি প্রায় ২০ ডলার বা তারও বেশি ছাড় দিচ্ছে রাশিয়া। তাই ভারত এখন যে সব দেশ থেকে তেল কেনে সেই তালিকায় দুই নম্বরে উঠে গেছে রাশিয়া। আগে সৌদি আরব ছিল দুই নম্বরে। এখন তারা তিন নম্বরে আছে। এক নম্বরে আগের মতোই ইরাক আছে।

রাশিয়া থেকে বিপুল পরিমাণ তেল আসার ফলে দুইটি সুবিধা পাচ্ছে ভারত। এক, তাদের তেল কেনার খরচ কমেছে। ফলে কেন্দ্রীয় সরকার সাম্প্রতিক সময়ে তেলের দাম বিশেষ বাড়ায়নি, বরং কমিয়েছে। দুই, ভারতের বিদেশি মুদ্রার ভান্ডারে টান পড়েনি। ভারতের কাছে এখন যথেষ্ট পরিমাণ বিদেশি মুদ্রা আছে, ফলে সেদিকে চিন্তার কোনো কারণ নেই। আর রাশিয়ার কাছ থেকে ভারত এই যে তেল কিনছে, তা অ্যামেরিকা ও ইউরোপের আপত্তিকে উড়িয়ে দিয়েই কিনছে। বাইডেনের পরামর্শদাতা ভারতে এসেছেন, ইউরোপীয় কমিশনের প্রধান ভারতে এসেছেন, প্রধানমন্ত্রী মোদী জার্মানিসহ ইউরোপের কয়েকটি দেশে গেছেন, পররাষ্ট্রমন্ত্রী জয়শঙ্কর অ্যামেরিকা গেছেন। সব জায়গায় রাশিয়া থেকে তেল কেনার প্রসঙ্গ এসেছে। কিন্তু ভারত জানিয়ে দিয়েছে, তারা রাশিয়া থেকে তেল কিনবে। ভারতের বক্তব্য ছিল, ইউক্রেনে হামলার পরও ইউরোপ রাশিয়া থেকে একদিনে যে পরিমাণ তেল ও গ্যাস কিনছে, সেই পরিমাণ তেল ভারত সারাবছর ধরেও রাশিয়ার কাছ থেকে কেনে না। তাহলে কেন ভারতের ক্ষেত্রে আপত্তি তোলা হবে।

সাধে কি আর বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ভারতে এসে জয়শঙ্করকে অনুরোধ করেছিলেন, ঢাকাও যাতে সস্তায় তেল কিনতে পারে, সেই রাস্তা বাতলে দিক দিল্লি। তিনি এটাও জানিয়েছিলেন, বাংলাদেশ ছোট দেশ বলে তাদের উপর চাপ অত্যন্ত বেশি। তাই তারা ভারতের সাহায্য চাইছেন। একেবারেই ভুল কথা বলেননি বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী। কারণ, ইউরোপ, অ্যামেরিকার চোখরাঙানিকে ভারত যে ভয় না পেয়ে রাশিয়ার কাছ থেকে তেল কেনা বাড়িয়ে যাচ্ছে, তার কারণ হলো, আয়তনে, প্রভাবে ভারত অনেকটাই বড়। ভারতের বিশাল বাজার ধরতে সব দেশের কোম্পানি উদগ্রীব। ভারতের বাজার হারালে অনেক বহুজাতিক কোম্পানি রীতিমতো বিপাকে পড়বে। অস্ত্র থেকে শুরু করে ভোগ্যপণ্য- সবকিছুর ক্ষেত্রেই ভারতের বাজার তাদের কাছে খুবই লোভনীয়। সেজন্য ভারত এই চাপকে উপেক্ষা করতে পারে। বাংলাদেশ পারে না।

আর রাশিয়ার সস্তা তেলই বাঁচিয়ে দিলো ভারতকে। না হলে বাংলাদেশ, পাকিস্তানের মতো এখানেও তেলের দাম আকাশছোঁয়া হতো। তার প্রভাব সব জিনিসের উপর পড়ত। যুদ্ধের ফলে ভারতেও মুদ্রাস্ফীতি হচ্ছে। তবে তা সাত শতাংশের সীমার মধ্যে আছে। ইউরোপ ও অ্যামেরিকার থেকে ভালো অবস্থা ভারতের। তাই আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে যতই সমালোচনা হোক না কেন, ভারতের মানুষ যুদ্ধের বাজারে মস্কোর সঙ্গে দিল্লির এই বন্ধুত্ব নিয়ে কোনো আপত্তি জানাচ্ছে না। বরং তারা এখন স্বস্তিতে, তেলের দাম গত প্রায় ৯০ দিন ধরে বাড়েনি যে।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category
© All rights reserved © 2019 bhabisyatbangladesh
Developed by: A TO Z IT HOST
Tuhin