চিত্তের আত্মজা

খান এম সালেহীন

দানবের বীভৎস অন্ধকারের শক্তির বিকৃত জরাজীর্ণ আলো আধারের নিষ্কম্প অশুভ প্রৌঢ়ির বিরণভূমিতে আমার চিত্তের আত্মজার আগমনীর বার্তায় দিকভ্রষ্ট শকুনীর প্রেতাত্মারা।
লক্ষ প্রহরের অপেক্ষান্তে তুমি অনাবিল সৌষ্ঠব নিয়ে বাংলা মায়ের কোলে করলে পদার্পণ,
নৈবেদ্যে তোমার মাধুর্য-যশ-ঐশ্বর্য।
তোমার কন্ঠে শুনি আমি অমিয় নিস্বন
তোমার ওষ্ঠে সদা স্নিগ্ধময় সস্মিত,
নয়নে দূরদৃষ্টির স্বপ্ন চনমনে
তানপুরাতে বাজে উঠে চিত্তাকর্ষক রাগিণী,
ঊষর প্রান্তে নেমে এলো একপশলা বর্ষণ
যেন ফাগুনের অমত্ত ছায়ায় উরের মুকুর চিত্তহারী অনুভবে দুলে সপ্তম সুরে।

ক্ষৌণীর এই নিয়তি-নির্দিষ্ট মঞ্চ পাঠশালায়
একাত্তরের রক্তক্ষয়ী যুদ্ধান্তে ধরণীর বুকে বাংলার জয়জয়কার,
নিথর একলহমায় হানাদারের বিকৃত রুচির শৃঙ্গের ধ্বনি।
বায়ান্নর ভাষা সৈনিকদের আত্মত্যাগে আমাদের হৃদয় অন্তঃস্থলের শ্রদ্ধাঞ্জলি মন্ডিত মহান অষ্টক ফাল্গুন-একুশে ফেব্রুয়ারি,
তোমাদের শাশ্বত আত্মোৎসর্গের মহীয়ান গৌরবময় অধ্যায় আমাদের চিত্তে চিরঞ্জীবী।

যকের নিষ্করুণ বিস্তর দেশাচারে তুমিই সর্বাগ্রে করলে প্রৌঢ় অধিদেয় রীতি
এনে দিলে খগোল ভেদনে শশাঙ্ক গ্রহপতি।
কালীর খড়গ হাতে তুমি অশুভের সর্বনাশী,
দেবী তুমি – ব্রহ্মাণ্ডের পূজারিনী।
কাল জয়ী তুমি দুর্দমের অঙ্কুশা,
বিজয়িনী তুমি,জাতির মানস কন্যা।
প্রলয়ংকারী ঝঁঝায় বাজপাখির পাখায় কৃষ্ণকায় জীমূত হয়ে তুমি তেড়ে এলে
চিরে দিলে হানাদার রাজাকার দেশদ্রোহী দানবের দেহ ভেদ করে,
মহাকালের তুমি মায়াবিনী
অসুরের অট্টহাসি গ্রাসি
তুমি গায়েত্রী,যমের সর্বনাশী।

২৮/০৯/২০১৯
ডাবলিন
আয়ারল্যান্ড