বঙ্গোপসাগরে সৃষ্টি হওয়া নিম্নচাপটি ঘূর্ণিঝড়ে রূপান্তরিত হতে যাচ্ছে। পূর্ব-মধ্য বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থানরত গভীর নিম্নচাপটি ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হলে এর নাম হবে ‘বুলবুল’। এই নামটি পাকিস্তানের দেওয়া।

আবহাওয়াবিদরা জানিয়েছেন, ১২ ঘণ্টার মধ্যে ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। এর প্রভাব বাংলাদেশেও পড়তে পারে বলে জানিয়েছে ভারতীয় আবহাওয়া অধিদপ্তর। ১২ ঘণ্টার মধ্যে নিম্নচাপটি সিভিয়ার সাইক্লোনিক স্টর্ম বা প্রবল ঘূর্ণিঝড়ের রূপ নিতে পারে বলে জানিয়েছে তারা।

বাংলাদেশ উপকূল থেকে এটি এখনো ৯৬০ কিলোমিটার দূরে অবস্থান করছে। ৮ নভেম্বরের মধ্যেই ঘূর্ণিঝড়টির গতিবেগ ঘন্টায় ৭০ থেকে ৮০ মাইলে উঠবে। যা সর্বোচ্চ ৯০ মাইলেও পৌঁছাতে পারে। সেদিনই বুলবুল ভারতের উড়িষ্যা ও পশ্চিমবঙ্গে আছড়ে পড়তে পারে।

আর ১০ নভেম্বরের মধ্যে এর গতিবেগ ঘন্টায় ৮০ থেকে ৯০ মাইলে উঠবে। যা সর্বোচ্চ ১০০ মাইলেও উঠতে পারে। বাংলাদেশে আঘাত হানার সময় এর গতিবেগ আরও বেড়ে যাবে। ১০ নভেম্বর ভোর সাড়ে ৫টার দিকে এটি বাংলাদেশ উপকূলে আছড়ে পড়তে পারে।

বুধবার বিকেলে বাংলাদেশের আবহাওয়া অধিদপ্তরের আগামী ২৪ ঘণ্টার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, পূর্ব-মধ্য বঙ্গোপসাগরে থাকা নিম্নচাপটি সামান্য পশ্চিম-উত্তর পশ্চিম দিকে অগ্রসর হয়েছে। সকাল নয়টার দিকে একই এলাকায় থাকা এ নিম্নচাপ গভীর নিম্নচাপে পরিণত হয়েছে। এটি আরও ঘনীভূত হয়ে উত্তর-পশ্চিম দিকে অগ্রসর হয়েছে।

আবহাওয়া অধিদপ্তর বলছে, পরবর্তী ২৪ ঘণ্টায় দেশের উপকূলীয় অঞ্চলের দু-একটি জায়গায় হালকা বৃষ্টির সম্ভাবনা আছে। দেশের অন্যত্রও এর প্রভাবে আকাশ মেঘলা থাকবে।

এদিকে ঘূর্ণিঝড় ‘কিয়ার’ এখনও অবস্থান করছে আরব সাগরে। তার ওপর দাপট দেখাচ্ছে নতুন ঘূর্ণিঝড় ‘মহা’। দুই ঘূর্ণিঝড় একসঙ্গে অবস্থান করায় মাঝেমধ্যেই গতিপথ বদলে যাচ্ছে ঝড়ের। ফলে দুই ঝড়ই এখনও পর্যন্ত সমুদ্রে বিরাজ করছে।

১৯৬৫ সালের পর একইসঙ্গে দুটি ঘূর্ণিঝড় আরব সাগরের বুকে এই প্রথম। গত ৫০ বছরের ইতিহাসে এমনটা দেখা যায়নি।