ক্যাসিনো কেলেঙ্কারিতে গ্রেফতার ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের বহিষ্কৃত সভাপতি ইসমাইল হোসেন চৌধুরী সম্রাটকে বুকে ব্যথা নিয়ে জাতীয় হৃদরোগ ইন্সটিটিউট ও হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সম্রাটের চিকিৎসায় ১৫ সদস্যের মেডিকেল বোর্ড গঠন করা হয়েছে। জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট

ও হাসপাতালের পরিচালক প্রফেসর ডা. মীর জামাল উদ্দিন বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, সম্রাটকে রোববার (১৩ সেপ্টেম্বর) রাতে হাসপাতালের সিসিইউ-১ এ ভর্তি করা হয়েছে। তিনি বলেন, ‘সম্রাটের অনিয়মিত হৃৎস্পন্দন বা অ্যারিদমিয়া সমস্যা। প্রতি মিনিটে স্বাভাবিক হৃৎস্পন্দনের মাত্রা ৬০ থেকে ১০০,

এর চেয়ে কম বা বেশি মাত্রায় হৃৎস্পন্দন হওয়া কিংবা দুটিই।’ ডা. মীর জামাল উদ্দিন আরও বলেন, ‘হাসপাতালের সহযোগী প্রফেসর ড. মহসিন আহমেদের অধীনে চিকিৎসাধীন আছেন সম্রাট। তার চিকিৎসায় দুপুরে একটি মেডিকেল বোর্ড গঠন করে বৈঠক করা হবে।’ এদিকে রোববার রাতেই সম্রাটের বিরুদ্ধে রাজধানীর রমনা

থানায় মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ আইনে মামলা করেছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)। এ বিষয়ে সিআইডির সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি মিডিয়া) জিসানুল হক বলেন, কাকরাইলের বাসায় অবস্থান করে অবৈধ কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে অর্জিত ১৯৫ কোটি টাকা সহযোগী মো. এনামুল হক আরমানের (৫৬) সহায়তায় সিঙ্গাপুর

ও মালয়েশিয়ায় পাচার করায় সম্রাটের বিরুদ্ধে মামলাটি দায়ের করা হয়। ক্যাসিনোবিরোধী অভিযান শুরুর পর সম্রাটের নাম আসার পর থেকেই তাকে নিয়ে নানা গুঞ্জন শুরু হয়। অভিযান শুরুর পর হাইপ্রোফাইল কয়েকজন গ্রেফতার হলেও খোঁজ মিলছিল না সম্রাটের। এসবের মধ্যেই তার দেশত্যাগেও নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়।