মঙ্গলবার, ২৪ নভেম্বর ২০২০, ০৬:৩০ পূর্বাহ্ন

গুলশানে বিএনপি নেতাকর্মীদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া, আহত ১২

Reporter Name
  • আপডেট : শনিবার, ১২ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ১৩ পড়েছেন

রাজধানীর গুলশানে বিএনপির চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ের সামনে দুই গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে ১০-১২ জন নেতা-কর্মী আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে। ওই অফিসের আশপাশে বিপুল পরিমাণ পুলিশ ও র‌্যাব সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। শনিবার (১২ সেপ্টেম্বর) বিকেল ৫টার দিকে এ ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার

ঘটনা ঘটে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, শনিবার বিকেল ৫টায় উপ-নির্বাচনে বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশীদের ভার্চুয়াল সাক্ষাৎকারের জন্য ডাকে দলটি। কিন্তু তার আগেই সেখানে কফিল উদ্দিন ও জাহাঙ্গীরের সমর্থকরা জড়ো হন। এস এম জাহাঙ্গীরের বিভিন্ন অপকর্মের বিরুদ্ধে কফিল উদ্দিনের সমর্থকরা স্লোগান দিতে থাকলে প্রথমে কথা কাটাকাটি ও পরে তা সংঘর্ষে

রূপ নেয় এর আগে ঢাকা-১৮ আসনের উপনির্বাচনে যুবদল নেতা এস এম জাহাঙ্গীরকে মনোনয়ন না দিতে দলের হাইকমান্ডের কাছে লিখিত আবেদন জানিয়েছেন ঢাকা-১৮ নির্বাচনী এলাকার বিএনপি সমর্থিত আট কাউন্সিলর প্রার্থী। তারা হলেন- ১নং ওয়ার্ডের মোস্তাফিজুর রহমান সেগুন, ৫০নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী দেওয়ান মোহাম্মাদ নাজিম উদ্দিন, ৪৪নং

ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী মো. আনোয়ার হোসেন আয়নাল, ৪৭নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী মোতালেব হোসেন রতন, ৪৬নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী আরিফুর রহমান আরিফ, ৪৩নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী মো. আক্তার হোসেন, সংরক্ষিত ৫২, ৫৩ ও ৫৪ ওয়ার্ডের প্রার্থী সোহেলী পারভীন শিখা এবং সংরক্ষিত ৪৯, ৫০ ও ৫১ ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী

লুৎফা খানম চৌধুরী। তারা লিখিত ভাবে বলেন, এসএম জাহাঙ্গীর এলাকায় বিএনপির সঙ্গে সংশ্লিষ্টতা নেই। তিনি আওয়ামী লীগের সাথে আঁতাত করে রাজনীতি করেন। এলাকার নির্যাতিত নেতা-কর্মীরা তার দ্বারাও নানাভাবে হেনস্তা ও নির্যাতনের শিকার। এছাড়া তিনি চাঁদাবাজির সাথে জড়িত। এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিএনপি চেয়ারপারসনের প্রেস উইংয়ের

সদস্য শায়রুল কবির খান বলেন, দুপক্ষ নেতাকর্মীদের কথার কাটাকাটি হয়েছে। তেমন বড় কিছু হয়নি। গুলশান থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আবুল হাসান জানিয়েছেন, দুপুরে বিএনপির কার্যালয়ের সামনে দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়।এতে বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন। পরে ওই অফিসের আশপাশে বিপুল পরিমাণ পুলিশ ও র‌্যাব সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। অতিরিক্ত পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ