১৯৯৬ সালে কেনিয়ার নাইরোবিতে শ্রীলংকার বিপক্ষে ওয়ানডেতে মাত্র ৩৭ বলে দ্রুততম শতরানের রেকর্ড গড়েছেন শহীদ আফ্রিদি। পাকিস্তানের সাবেক এই অলরাউন্ডারের রেকর্ডটি ১৮ বছর স্থায়ী ছিল।

২০১৪ সালে ৩৬ বলে সেঞ্চুরি করে নিউজিল্যান্ডের কোরি অ্যান্ডারসন। তার এই রেকর্ডটি স্থায়ী ছিল মাত্র এক বছর। একদিনের ক্রিকেটে ৩১ বলে সেঞ্চুরি করেছেন এবি ডি ভিলিয়ার্স।

আফ্রিদি যে ব্যাট দিয়ে দ্রুততম সেঞ্চুরির রেকর্ড গড়েছিলেন সেই ব্যাটটি ছিল কিংবদন্তি ব্যাটসম্যান শচীন টেন্ডুলকারের। ভারতীয় সাবেক এই অধিনায়ক তার প্রিয় ব্যাটটি পাকিস্তানের অন্যতম সেরা পেসার ওয়াকার ইউনুসকে উপহার দিয়েছিলেন।

ওয়াকার ইউনুসকে উপহার দেয়া শচীনের সেই ব্যাট দিয়েই নাইরোবিতে ৪০ বলে ১০৪ রানের ম্যাচজয়ী ইনিংস খেলে পুরস্কার জিতেছিলেন আফ্রিদি। ২৪ বছর আগের স্মৃতিচারণ করে সেই ম্যাচে খেলা আফ্রিদির সতীর্থ আজহার মাহমুদ সম্প্রতি জানান,

১৯৯৬ সালে নাইরোবি ম্যাচে রেকর্ড সেঞ্চুরি করার মধ্য দিয়েই আত্মপ্রকাশ হয়েছিল শহীদ আফ্রিদির। সেই টুর্নামেন্টে আফ্রিদির খেলারই কথা ছিল না। দলের একজন গুরুত্বপূর্ণ ক্রিকেটার হঠাৎ চোট পাওয়ায় আফ্রিদিকে দলে নেয়া হয়।

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে নামার আগে নেটে অসাধারণ ব্যাটিং করায় আফ্রিদিকে ৬ নম্বরের পরিবর্তে খেলানো হয় তিন নম্বরে। বোলার থেকে ব্যাটে ‘বুমবুম’ খ্যাতি পাওয়া আফ্রিদি প্রসঙ্গে আজহার মাহমুদ আরও বলেছেন, তিন নম্বরে নামার আগে ওয়াকার ইউনুসের কাছে ব্যাট চান আফ্রিদি।

আমরা সবাই জানি শচীন ওয়াকারকে ব্যাট উপহার দিয়েছিলেন। আর সেই ব্যাট নিয়েই মাঠে নেমেছিলেন আফ্রিদি। সেদিন থেকেই বোলারের পাশাপাশি ব্যাটসম্যান হিসেবে নিজের দক্ষতা প্রকাশ করেছেন আফ্রিদি। পাকিস্তানের সাবেক অধিনায়ক শহীদ আফ্রিদি পাকিস্তানের হয়ে ২৭টি টেস্ট,

৩৯৮টি ওয়ানডে ও ৯৯টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলেন। সাবেক এই তারকা অলরাউন্ডার দেশের হয়ে ব্যাট হাতে ১১টি সেঞ্চুরি আর ৫১টি ফিফটির সাহায্যে ১১ হাজার ১৯৬ রান সংগ্রহ করেন। আর ব্যাট হাতে আন্তর্জাতিকে ৫২৪ ম্যাচে শিকার করেন ৫৪১ উইকেট।