নেইমার বার্সেলোনা ছেড়ে পিএসজিতে গিয়েছিলেন রেকর্ড পরিমাণ অর্থে। তবে ফরাসী ক্লাবটিতে যে খুব একটা সুখে নেই ব্রাজিলিয়ান সুপারস্টার, সেটি পরিষ্কার। বেশ কয়েকবারই বার্সায় ফিরতে চেয়েছেন, এমনকি কম বেতনে হলেও। মেসি-নেইমার-সুয়ারেজ ত্রয়ী দেখতে উন্মুখ ছিল সমর্থকরাও। যদিও, টাকার ‘লোভে’ যেভাবে নেইমার বার্সা ছেড়েছিল সেটি পছন্দ হয়নি ক্লাব কর্তৃপক্ষের।

তারপরও হালের অন্যতম সেরা ফুটবলারকে ক্লাবে ভেড়াতে পারলে এমন খারাপ তো হতো না! এবার বার্সা সভাপতি হোসে বার্তামেউ বললেন, নেইমারকে কেনার কোন চেষ্টাই নাকি করবেনা বার্সেলোনা! কারণটা নাকি অর্থসংকট!

করোনার প্রভাবটা অবশ্য টের পেতে শুরু করেছে সবাই। ইউরোপ তো বটেই, বিশ্বের অন্যতম ধনী ক্লাব বার্সেলোনাও এখন অর্থ সংকটে ভুগছে। বিষয়টি স্বীকার করেছেন বার্সা সভাপতি। স্পোর্টকে দেয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, গেল গ্রীষ্মে ওকে দলে টানার জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টাই আমরা করেছি। কিন্তু পিএসজি ওকে বিক্রি করতে চায়না। এই মৌসুমে আমরা ওকে নেয়ার চেষ্টাও করছিনা। কারণ সেই পরিমান টাকাও আমাদের কাছে নেই এই মূহুর্তে।

আরেকজন ফুটবলারের দিকে হাঁ করে তাকিয়ে ছিল বার্সেলোনা। পুরো মৌসুম জুড়েই গুঞ্জন চলছিল, ইন্টার মিলান ছেড়ে কাতালান শিবিরে যোগ দিচ্ছেন লওতারো মার্টিনেজ। আর্জেন্টাইন এই তারকাকে জুটি বাঁধতে দেখা যাবে লিওনেল মেসির সঙ্গে, এই আশায় বুক বেঁধে ছিল সবাই। তবে টাকার অভাবে তাকেও কেনা হচ্ছেনা বার্সেলোনার।

বার্তামেউ বলেন, গেল কয়েক সপ্তাহ ধরেই মার্টিনেজের ব্যাপারে ইন্টার মিলানের সঙ্গে আলাপ করেছি আমরা। তবে এখন সেই আলোচনাও স্থগিত রেখেছি দু’পক্ষই। এখনকার পরিস্থিতিতে বড় কোন ট্রান্সফার করবো না আমরা।

মার্চ থেকে জুন, যে কয়েকমাস বন্ধ ছিল লা লিগা তাতেই নাকি প্রায় ২০০ মিলিয়ন ইউরো ক্ষতি হয়েছে বার্সেলোনার। ক্ষতি পুষিয়ে তুলতে অন্তত এক বছর লাগবে বলে জানিয়েছেন বার্সা সভাপতি। আর তাইতো এই মৌসুমে বার্সেলোনায় বড় সড় দলবদল হচ্ছেনা সেটি পরিষ্কার।