আর কয়দিন পরই সারা বিশ্বে উদযাপিত হবে মুসলমানদের দ্বিতীয় বৃহত্তম উৎসব পবিত্র ঈদুল আজহা। এ দিন মহান আল্লাহার উদ্দেশ্যে পশু কোরবানি করে থাকেন মুসলমানরা।

তবে মুসলমানদের সে পশু কোরবানিতে এবার হুমকি দিয়ে বসলেন ভারতের উত্তর প্রদেশের বিজেপি বিধায়ক নন্দকিশোর গুর্জর।

বলেছেন, ঈদে কুরবানি দিতে হলে নিজের সন্তানকে কুরবানি দিন। ভারতে একটিও যাতে কুরবানি না হয় সেজন্য তিনি গাজিয়াবাদ প্রশাসনকে জানাবেন বলেও মন্তব্য করেছেন।

ভারতে আগামি শনিবার (১ আগস্ট) পবিত্র ঈদুল আজহা পালিত হবে। করোনা পরিস্থিতিতে উত্তর প্রদেশের মুসলমানরা যখন ঈদ পালনের প্রস্তুতি নিচ্ছেন তখনই প্রকাশ্যে এলো বিজেপি বিধায়কের এমন মন্তব্য।

ভারতীয় গণমাধ্যমকে বিজেপি বিধায়ক নন্দকিশোর গুর্জর বলেন, করোনা পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে এ বছর মুসলমানদের ঈদে পশু কুরবানি দেওয়া উচিত নয়। যদি কুরবানি দিতে হয়, তাহলে নিজের সন্তানকে দিন। উত্তর প্রদেশে জেনো মুসলমানরা একটিও কুরবানি দিতে না পারে সেজন্য গাজিয়াবাদ প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন তিনি।

এর আগে আসন্ন ঈদুল আযহা উপলক্ষে কোরবানি বন্ধ করার জন্য মামলা করেছিলেন বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিং। দেশটির হাইকোর্টে এ ধরনের মামলা এটিই প্রথম ছিল না।

কোরবানি বন্ধে প্রথম মামলাটি করা হয় ২০০৮ সালে। তখন আদালত নির্দেশ দেয়, পশুহত্যার নিয়ম মানতে হবে কোরবানি ঈদের সময়। কসাইখানায় পশুদের নিয়ে যাওয়ার আগে সেগুলোর সঠিক পরীক্ষা করতে হবে।

২০১৯ সালে আবারো এই মর্মে জনস্বার্থ মামলা দায়ের করা হয়। এর আগে ভারতে মসজিদ থেকে মাইকে আযান দেওয়ার বিরোধিতা করে ভারতের কলকাতা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিলেন বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিং। সে অভিযোগের প্রেক্ষিতে এবার পাল্টা মামলা করার হুমকিও দিয়েছে রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘের শাখা সংগঠন মুসলিম রাষ্ট্রীয় মঞ্চ।