করোনার ভুয়া টেস্টের অভিযোগে গ্রেপ্তার জেকেজি হেলথকেয়ারের চেয়ারম্যান ও জাতীয় হৃদেরাগ ইনস্টিটিউটের চিকিৎসক ডা. সাবরিনা চৌধুরীকে রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। এই জিজ্ঞাসাবাদে চাঞ্চল্যকর সব তথ্য বেরিয়ে আসছে বলে জানা গেছে।

পুলিশ জানিয়েছে, জেকেজির কোনো ট্রেড লাইসেন্স নেই। এর পরও কিভাবে প্রতিষ্ঠানটি করোনা নমুনা সংগ্রহের অনুমতি পেল তার তদন্ত চলছে। সাবরিনার মোবাইল ফোন চেক করে সাতটি মেসেজ পাওয়া গেছে।

প্রতিটি মেসেজে সাবরিনা বিভিন্ন মানুষকে ফোন করে কখনো জেকেজির চেয়ারম্যান, কখনো সমন্বয়ক আবার কখনো আহ্বায়ক পরিচয় দিয়ে প্রতারণা করেছেন। তাকে সহযোগিতাকারী অনেক প্রভাবশালীর নাম জানা গেছে।

সাবরিনাকে জিজ্ঞাসাবাদকারী ঢাকা মহানগর পুলিশের তেজগাঁও বিভাগের উপকমিশনার (ডিসি) হারুন অর রশিদ জানিয়েছেন, সাবরিনার মোবাইল ফোন চেক করে করেছে পুলিশ। সেখানে প্রায় প্রতিটি মেসেজের শুরুতেই সাবরিনা নিজেকে জেকেজির চেয়ারম্যান দাবি করেছেন। এর মধ্যে একটি মেসেজ এরকম-

‘সুমন আমি জেকেজির চেয়ারম্যান ডা. সাবরিনা বলছি। তুমি খুব কিউট। আমার প্রতিনিধি পাঠাচ্ছি। করোনা নমুনা সংগ্রহ করতে সব ধরনের সহযোগিতা কর।’

হারুন অর রশিদ গণমাধ্যমকে বলেছেন, তিন দিনের রিমান্ডে নিয়ে সাবরিনাকে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করা হয়েছে। এরই মধ্যে তিনি কিভাবে প্রতারণার ফাঁদ পেতে করোনা নমুনা পরীক্ষা ছাড়াই ভুয়া সনদ দিতেন সে বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিয়েছেন।

প্রসঙ্গত যে, অতি সম্প্রতি জেকেজির ব্যাপারে পুলিশ বিশদ তদন্ত শুরু করে। এতে উঠে আসে ডা. সাবরিনা ও তার প্রতারক স্বামী আরিফ চৌধুরীর নাম। এরপর গত রবিবার ডা. সাবরিনাকে হৃদেরাগ হাসপাতাল থেকে পুলিশের কার্যালয়ে ডেকে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের পর তেজগাঁও থানার এক মামলায় তাকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়।

ডা. সাবরিনাকে গতকাল সোমবার সকালে ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে হাজির করে চার দিনের রিমান্ডের আবেদন করে পুলিশ। শুনানি শেষে ঢাকা মহানগর হাকিম শাহিনুর রহমান তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

সাবরিনার ৩ মিনিটের যে ভিডিও ভাইরাল. এবার ডা. সাবরিনার ৩ মিনিটের যে ভিডিও ভাইরাল. অনলাইন ডেস্ক. ক’রোনা পরীক্ষায় অনিয়ম ও জেকেজি হেলথকেয়ারের জালিয়াতির মা’মলায় গ্রে’প্তার জাতীয় হৃ’দরো’গ ইন্সটিটিউটের চিকিৎসক ডা. সাবরিনা শারমিন হুসাইন ওরফে সাবরিনা আরিফ চৌধুরীকে তিন দিনের রি’মান্ডে

নিয়েছে পু’লিশ।ক’রোনা পরীক্ষায় অনিয়ম ও জেকেজি হেলথকেয়ারের জালিয়াতির মা’মলায় গ্রে’প্তার জাতীয় হৃদরো’গ ইন্সটিটিউটের চি’কিৎসক ডা. সাবরিনা শারমিন হুসাইন ওরফে সাবরিনা আরিফ চৌধুরীকে তিন দিনের রি’মান্ডে নিয়েছে পু’লিশ।গ্রে’প্তারের পর থেকেই ডা. সাবরিনাকে নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশ পাচ্ছে

নানা ত’থ্য। বি’তর্কি’ত অভিনেত্রী সানাইয়ের একটি আ’পত্তিকর সাক্ষাৎকারের কণ্ঠ ও ডা. সাবরিনার ফুটেজ দিয়েও তৈরি করা হয়েছে ব্যাঙ্গাত্মক ভিডিও।এছাড়াও ডা. সাবরিনাকে নিয়ে সামাজিক মাধ্যম ফেসবুক, ইউটিউবসহ নানা জায়গায় নানা ত’থ্য তুলে ধরে ভিডিও প্রকাশ করা হচ্ছে।বি’তর্কি’ত অভিনেত্রী সানাই মাহবুবের একটি

আ’পত্তিকর সাক্ষাৎকারের কণ্ঠের স’ঙ্গে ডা. সাবরিনার ভিডিও জুড়ে দিয়ে ব্যাঙ্গাত্মক দৃশ্য প্রকাশ করেছে ‘হাঁসির জন্য ৩ মিনিটই যথেষ্ট’ নামক একটি ফেসবুক পেজে।ডা. সাবরিনাকে গ্রে’প্তারের পর তার স্বা’মী আরিফ চৌধুরীর অনিয়মের স’ঙ্গে স্ত্রীর জ’ড়িত থাকার কথা পু’লিশের কাছে স্বীকার করেন।গত রোববার ডা. সাবরিনাকে

জি’জ্ঞাসাবাদের জন্য তলব করে ঢাকা মেট্রোপলিটন পু’লিশ (ডিএমপি) এর তেজগাঁও জোনের কর্মকর্তারা। জি’জ্ঞাসাবাদে তিনি পু’লিশের প্রশ্নের সঠিক উত্তর দিতে পারেননি। পরে তাকে গ্রে’প্তার দেখানো হয়। ক’রোনা রি’পোর্ট জা’লিয়া’তির অ’ভিযো’গে গ্রেফ’তার হওয়া ডা. সাবরিনা আরিফ চৌধুরী জেকেজি হেলথকেয়ারের

ইউটিউব চ্যানেলে দিয়েছেন অজস্র ভিডিও টিউটোরিয়াল। সেসব ভিডিওতে তিনি বিভিন্ন পরামর্শ দিয়েছেন। তার একটি ভিডিও’র শিরোনাম ‘জি’রো ফি’গার কি আ’সলেই জ’রুরি’। “আর এই ভিডিওটি সম্প্রতি ভাইরাল হয়েছে পূর্বের তুলনায় অনেক ভিও পড়ছে ইউটুবে এ ভিডিওটাতে। আর এই ভিডিওটা ১২ মিনিট ৩ সেকেন্ডের। জেকেজি হেল’থকেয়া’রের ইউটিউব চ্যানেলে এই

আপলোড দেওয়া হয়েছিল”। জি’রো ফি’গার কি আসলেই জরুরি’ শিরোনামের একটি ভিডিওতে তিনি ডা’য়েট ক’ন্ট্রোল নিয়ে বিভিন্ন পরামর্শ দেন। সেখানে তিনি ডা’য়েট ক’ন্ট্রোল করতে গিয়ে কীভাবে অনেকেই অজ্ঞা’ন হয়ে পড়েন সে কথাও বলেন।

সব কিছুই পরিমাণ মতো খেতে বলেছেন ডা. সাবরিনা। তবে খা’শি বা গ’রুর মগ’জ কলি’জা এগুলো খেতে মানা করেছেন। ডিমের ব্যাপারে বলেছেন, প্রতিদিন একটি করে খেতে। কম মিষ্টি যুক্ত ফল খেতে বলেছেন তিনি। তিনি এই ভিডিওতে আট গ্লাস পানি খেতে বলেছেন।

এছাড়াও বাচ্চাদের বাইরে খেলার সুযোগ করে দেয়ার আহ্বান জানান তিনি। কারণ বাচ্চারা ঘরে বসে থেকে মোটা হয়ে যাচ্ছে। উল্লেখ্য, করো’নার নমুনা পরীক্ষায় প্রতা’রণা মাম’লায় জেকেজি’র চেয়ারম্যান, জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট ও হাস’পাতাল থেকে বহি’ষ্কৃত ডা. সাবরিনা আরিফের তিনদিনের রি’মান্ড মঞ্জু’র করেছেন আদা’লত।

সকালে তাকে আদা’লতে হাজির করে চারদিনের রিমা’ন্ড আবেদন করে পু’লিশ। একই সঙ্গে তার জা’মিন আবে’দন খারি’জ করে দেন আদা’লত।তথ্য সূএ; সময়টিভি

ডা. সাব’রিনার ৩ মিনিটের যে ভি’ডিও ভা’ইরাল ক’রোনা পরী’ক্ষায় অনি’য়ম ও জে’কেজি হে’লথ’কেয়া’রের জা’লিয়া’তির মা’মলা’য় গ্রে’প্তার জাতীয় হৃ’দরো’গ ইন্স’টিটিউ’টের চি’কিৎ’সক ডা. সা’বরিনা শারমিন হুসাইন ওরফে সাবরিনা আরিফ চৌধুরীকে তিন দিনের রিমা’ন্ডে নিয়েছে পু’লিশ।

গ্রে’প্তা’রের পর থেকেই ডা. সাব’রিনাকে নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশ পাচ্ছে নানা ত’থ্য। বি’তর্কি’ত অভিনেত্রী সা’নাইয়ের একটি আ’পত্তিক’র সাঃক্ষা’ৎকারে’র কণ্ঠ ও ডা. সাবরিনার ফু’টেজ দিয়েও তৈরি করা হয়েছে ব্যা’ঙ্গাত্ম’ক ভি’ডিও।

এছাড়াও ডা. সাবরিনাকে নিয়ে সামাজিক মাধ্যম ফেসবুক, ইউটিউবসহ নানা জায়গায় নানা ত’থ্য তু’লে ধরে ভিডিও প্র’কাশ করা হচ্ছে। বিত’র্কিত অভি’নেত্রী সা’নাই মাহ’বুবের একটি আ’পত্তি’কর সা’ক্ষাৎকা’রের ক’ণ্ঠের সঙ্গে ডা. সাবরিনার ভিডিও জুড়ে দিয়ে ব্যা’ঙ্গাত্ম’ক দৃ’শ্য প্রকাশ করেছে ‘হাঁ’সির জন্য ৩ মিনি’টই যথেষ্ট’ নামক একটি ফেসবুক পেজে।

ডা. সাবরিনাকে গ্রে’প্তারের পর তার স্বা’মী আরিফ চৌধুরীর অ’নিয়মে’র স’ঙ্গে স্ত্রী’র জ’ড়িত থাকার কথা পু’লিশের কাছে স্বী’কার করেন। গত রোববার ডা. সাবরিনাকে জি’জ্ঞাসা’বাদের জন্য ত’লব করে ঢাকা মে’ট্রোপলি’টন পু’লিশ (ডি’এ’ম’পি) এর তেজগাঁও জো’নের কর্ম’কর্তারা। জি’জ্ঞাসা’বাদে তিনি পু’লিশের প্রশ্নের স’ঠিক উ’ত্তর দিতে পারে’ননি। পরে তাকে গ্রে’প্তার দেখানো হয়। সূত্র; সাত’ক্ষীরার সময়

আরো পড়ুন, শিক্ষা সং’ক্রা’ন্ত কোনো বিষয়ে গু’জব ছড়ানো হলে বা গু’জব ছড়ানোর চে’ষ্টা করা হলে আ’ইনগ’ত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে হুঁ’শিয়া’রি দিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। শিক্ষামন্ত্রী বলেন, কো’ভিড-১৯ -এর বি’স্তার রো’ধ ও শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ছুটি রয়েছে আগামী ৬ আগস্ট পর্যন্ত।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার বিষয়ে কোনো সি’দ্ধান্ত নেওয়া হলে আনুষ্ঠানিকভাবে বা বিজ্ঞপ্তি দিয়ে বিস্তারিত জানানো হবে। এ বিষয়ে আগে থেকেই কেউ কোনো গু’জব ছ’ড়ালে, মি’থ্যা প্র’চার’ণা চালালে তার বি’রুদ্ধে আ’ইনগ’ত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ‘বাংলাদেশ জাতীয় শিক্ষা বোর্ড’ নামে একটি ফেসবুক পেজের মাধ্যমে প্রচার করা হচ্ছে- ‘ঈদের

পর সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার সিদ্ধা’ন্ত নিচ্ছে সরকার’। এ বিষয়টি গু’জব বলে বুধবার (২২ জুলাই) বি’জ্ঞপ্তি দিয়ে জানিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। আজ বৃহস্পতিবার শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো বিজ্ঞ’প্তিতে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, সম্প্রতি লক্ষ্য করা যাচ্ছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এক শ্রেণির মানুষ শিক্ষা

সং’ক্রান্ত বিভিন্ন বিষয়ে মিথ্য প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। ঈদের পর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার বিষয়ে আমরা এখনো কোনো সিদ্ধা’ন্ত নেইনি। অথচ আমাদের নাম দিয়ে কখনো জাতীয় শিক্ষা বোর্ড নামে প্রচারণা চালানো হচ্ছে। প্রকৃতপক্ষে জাতীয় শিক্ষা বোর্ড নামে কোনো শিক্ষা বোর্ড নেই। দীপু মনি বলেন, মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তা, শিক্ষক

ও অভিভাবকদের এ বিষয়ে স’চেত’ন থাকতে অনুরো’ধ জানাচ্ছি। যখন সময় হবে আমরা গণ’মাধ্য’মের সাহায্যে জানিয়ে দেবো, কখন শি’ক্ষাপ্রতি’ষ্ঠান খোলা হবে, কখন পরীক্ষা নেওয়া হবে। জেলা প্রশাসন, আইন-শৃঙ্খলা র’ক্ষাকা’রী বাহি’নী ও র‍্যা’বকে এ সং’ক্রা’ন্ত গু’জব ও মি’থ্যা প্রচা’রণাকা’রীদের বিরু’দ্ধে ব্য’বস্থা নেওয়ার

আহ্বান জানান শিক্ষামন্ত্রী। ক’রোনা ভা’ইরা’সের কারণে গত ১৭ মার্চ থেকে দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ব’ন্ধ রয়েছে। শিক্ষাপ্র’তিষ্ঠান ব’ন্ধ থাকার মধ্যে প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্তরে সংসদ টিভিতে ক্লাস প্রচার করছে মন্ত্রণালয়। আর উচ্চ মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা স্তরে অনলাইনে ক্লাস চলছে। কয়েক দফা বৃ’দ্ধির পর আগামী ৬ আগস্ট পর্যন্ত

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছুটি রয়েছে। তবে সং’শ্লিষ্টদের ধা’রণা, ক’রোনা পরি’স্থিতির উন্নতি না হলে সহ’সাই শি’ক্ষা প্রতি’ষ্ঠান খুলবে না। মহা’মারি এই ভা’ইরা’সের কা’রণে ২৬ মার্চ থেকে টানা ৬৬ দিনের সাধারণ ছুটি শেষে ৩১ মে থেকে স্বা’স্থ্যবিধি মেনে সীমিত অ’ফিস-আদা’লত চলছে। আর গণপ’রিবহন চালু হয়েছে ১ জুন।

হোটেলের ছাদে সাহেদ পাপিয়ার চাঞ্চল্যকর কু’কর্ম ভাইরাল (ভিডিওসহ)

অ’নিয়ম-জালি’য়াতিতে অ’ভিযু’ক্ত রিজেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সাহেদ ওরফে সাহেদ করিম ও অনৈতিক ক’র্মকাণ্ড’সহ নানা অ’ভিযো’গে কারা’গারে থাকা শামিমা নূর পাপিয়া হোটেলের ছাদে একসঙ্গে পার্টি করতেন বলে একটি দৈনি’কের অনুসন্ধানে বেরিয়ে এসেছে। একাধিক পার্টিতে তারা দুইজনই উপস্থিত ছিলেন বলে উল্লেখ করা হয়েছে দৈনিকটির এক প্রতিবেদনে।

ওই প্রতিবেদনে জানানো হয়, রাজধানীর একটি থ্রি-স্টার হোটেলের প্লা’টিনাম মেম্বার শাহেদ। ওই হোটেলের ছাদে একাধিক পার্টিতে উপস্থিত ছিলেন তারা। শাহেদের প্রতিষ্ঠানের একাধিক কর্মীর বরাতে এ তথ্য দিয়েছে সংবাদমাধ্যমটি।

এছাড়া প্রতিবেদনটিতে উল্লেখ করা হয়, ২০১৬ সালের দিকে উত্তরায় রিজেন্ট ক্লাব গড়ে তোলেন শাহেদ। এর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে আসার কথা ছিল পাপিয়ার। তবে পাপিয়া ওই অনুষ্ঠানে আসতে পারেননি। এজন্য তার মনোনীত একজন প্রতিনিধি পাঠান। পাপিয়ার পাঠানো ওই তরুণীকে নিয়েই রিজেন্ট ক্লাব উদ্বোধন করেছিলেন শাহেদ।

ক্লাবের আড়ালে সেখানে মূলত ম’দ ও অসা’মাজিক কর্ম’কাণ্ডের আসর বসানো হতো বলেও সেখানে উল্লেখ করা হয়।

ক’রোনা’ভাই’রাসের ভু’য়া পরী’ক্ষার সা’র্টিফিকে’টসহ একাধিক অ’পক’র্মে অ’ভিযু’ক্ত শাহেদকে খুঁজে বেড়াচ্ছেন আ’ইনশৃ’ঙ্খলা র’ক্ষাকা’রী বা’হিনী।সূত্র ; বার্তা বাজার

ভ’য়াবহ তথ্য, করো’নার নমুনা সংগ্রহের পর যা করত জেকেজি

করো’না ভাই’রাস পরীক্ষা নিয়ে জালিয়াতির অ’ভিযোগে আ’ট’ক ওভাল গ্রুপের চিফ ভিজ্যুয়ালাইজার হু’মায়ূন কবীর ১৬৪ ধারায় দেয়া জবানব’ন্দিতে, করো’না পরীক্ষা নিয়ে তাদের ভ’য়াবহ কর্মাকা’ণ্ডের কথা স্বীকার করেছেন।

২৪ জুন ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আ’দালতে ফৌজদারি কার্যবিধির ১৬৪ ধারায় জবানব’ন্দিতে তিনি বলেন, বাসা থেকে সংগ্রহ করা করো’না পরীক্ষার নমুনা স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে পাঠাত না জেকেজি হেলথ কেয়ার।

সংগৃহীত নমুনা ড্রেনে ও ওয়াশ রুমে ফেলে তা নষ্ট করে ফেলা হতো। আর লক্ষণ বুঝে পজিটিভ-নেগেটিভ সনদ দেয়া হত। করো’না মহামা’রীর মধ্যে এমন জালিয়াতি কেন করা হল- এ প্রশ্নের কোনো জবাব দেননি আরিফ ও সাবরিনার কেউ-ই। গোয়েন্দারা যতবারই প্রশ্ন করেছেন, তারা ছিলেন নিশ্চুপ।

বুধবার সন্ধ্যা থেকে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত এই দম্পতিকে তিন দফায় মুখোমুখি করা হয়।কিন্তু প্রত্যেকে নিজের দায় এড়িয়ে অন্যের ঘাড়ে দোষ চাপিয়েছেন। সূত্র জানায়, বিভিন্ন স্থানে সাবরিনা নিজেকে জেকেজির চেয়ারম্যান পরিচয় দিয়ে আসছিলেন। তার জেকেজি কর্মচারীরাও তাকে সেভাবে চেনেন। প্রতি মাসে ৩০ হাজার টাকা বেতন নিতেন তিনি। বিভিন্ন স্থানে সাবরিনার পরিচয় দেয়ার প্রমাণ উপস্থাপন করলেও জিজ্ঞাসাবাদে তা অস্বীকার করেন সাবরিনা।

বরং তিনি স্বামী আরিফ চৌধুরীর নির্দেশে জেকেজিতে স্বেচ্ছাসেবী হিসেবে কাজ করেছেন বলে জানান, আরেকবার বলেন, মুখপাত্র হিসেবে কাজ করেছেন। এ সময় গোয়েন্দারা তার সামনে জেকেজি থেকে বেতন নেয়ার তিনটি স্লিপ উপস্থাপন করলে তিনি গোয়েন্দাদের পাল্টা প্রশ্ন ছুড়ে দেন- এসব স্লিপ আপনারা পেলেন কোথায়?

চেয়ারম্যানের বেতন এত অল্প টাকা কেন- এ প্রশ্নে এক কর্মক’র্তা বলেন, এটা তো সম্মানী হিসেবে দেখানো হতো। আসলে সবকিছুই তো তাদের। হয়তো অন্য স্টাফদের এটা বোঝানোর জন্য যে, চেয়ারম্যান হয়েও তিনি কত কম টাকা নেন। করো’না রিপোর্ট জালিয়াতির অ’ভিযোগে ২৩ জুন আরিফ চৌধুরীসহ ৬ জনকে গ্রে’ফতার করে তেজগাঁও থা’না পু’লিশ। এ ঘটনায় তাদের বি’রুদ্ধে ৪টি মা’মলা হয়।

আরিফকে থা’নায় নিয়ে এলে অনুসারীরা তাকে ছাড়িয়ে নিতে থা’নায় এসে ভাংচুর চালায়। এসব ঘটনায় ১৮ জন গ্রে’ফতার রয়েছেন। এদিকে জেকেজির চেয়ারম্যান হিসেবে জাতীয় হৃদরোগ ইন্সটিটিউটের কার্ডিয়াক সার্জন ডা. সাবরিনার সংশ্লিষ্টতা পায় পু’লিশ। রোববার সাবরিনাকে গ্রে’ফতার করে পরদিন তিন দিনের রি’মান্ডে নেয়া হয়।

সাবরিনার দেয়া তথ্য যাচাই করতে আরিফ চৌধুরী ও তার ভগ্নিপতি সাঈদকে দিনের ৪ দিনের রি’মান্ডে নেয় ডিবি। অ’ভিযোগ রয়েছে, ডা. সাবরিনা প্রভাব খাটিয়ে লাইসেন্সবিহীন প্রতিষ্ঠান জেকেজিকে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে করো’নার নমুনা পরীক্ষার অনুমতি পাইয়ে দেন।