ক’রোনাভাইরাস বা কোভিড-১৯ এ আ’ক্রান্ত হওয়া এক শি’শুকে দু’বার মৃ’ত ঘো’ষণার পরও বেঁ’চে উ’ঠেসে সে। যু’ক্তরাষ্ট্রের ক’ভিংটন শহরে আশ্চর্যজনক এ ঘ’টনা’ ঘ’টেছে।ক’ভিংটন শহরের বাসিন্দা ১২ বছরের মেয়ে জু’লিয়েট ডেলি মাস খানেক আগে জু’লিয়েটও ‘মাল্টি সি’স্টেম ইনফ্লেমেটোরি সিন’ড্রোমে’ আ’ক্রান্ত হয়।

যু’ক্তরাষ্ট্রে অনেক শি’শুর ‘মাল্টি সিস্টেম ই’নফ্লেমেটোরি সিন’ড্রোমে’ দেখা যাচ্ছে। এ জন্য ক’রোনা ভা’ইরাসকে দায়ী করছেন বি’শেষজ্ঞরা।জুলিয়েটের অ’ভিভাবকরা প্রথমে কিছু বুঝতে পারেননি কী হচ্ছে। কারণ তার শ’রীরে কোনও রকম অ’স্বস্তি বা ভা’ইরাসের উপ’সর্গ ছিল না। কি’ন্তু এর এক স’প্তাহ পর থেকে জ্ব’র, ব’মি আর ত’লপেটে ব্যথা শুরু হয় শি’শুটির।

হাস’পাতালে চি’কিৎসকরা জু’লিয়েটকে প’রীক্ষা করেন। কি’ন্তু ক’রোনা ভা’ইরাসের সাধারণ ল’ক্ষণ না থা’কায় তাকে অন্য প’রীক্ষার কথা বলা হয়।তাকে চি’কিৎসা দেয়া হা’সপাতালের রে’ডিয়োলজি বি’ভাগের প্রধান জে’নিফার বলেন, জু’লিয়েটের হয়তো অ্যাপেন্ডিসাইটিসে বা পা’কস্থলীতে কোনও ব্যা’কটেরিয়ার সং’ক্রমণ হয়েছে। কিন্তু ’দ্রুত তার স্বা’স্থ্যের অ’বনতি হয়।

পরে দেখা যায়, জু’লিয়েটের হৃৎস্পন্দনের গতি অ’স্বাভাবিকভাবে ক’মে গেছে। সাধারণত মি’নিটে ৭০ থেকে ১২০ হৃ’ৎস্পন্দন স্বা’ভাবিক। সেখানে জু’লিয়েটের হৃ’ৎস্পন্দন ছিল মি’নিটে মাত্র ৪০ বার।হা’সপাতালের চি’কিৎসকরা দেখতে পান জুলিয়েটের হৃ’ৎস্পন্দন প্রায় ব’ন্ধ হয়ে গিয়ে আবার স্ব’চল হয়েছে। মোট দুবার এমনটি হ’য়েছে জু’লিয়েটের সঙ্গে।

হা’সপাতালের চি’কিৎসকরা দেখতে পান জুলিয়েটের হৃ’ৎস্পন্দন প্রায় ব’ন্ধ হয়ে গিয়ে আবার স্ব’চল হয়েছে। মোট দুবার এমনটি হ’য়েছে জু’লিয়েটের সঙ্গে।