সকল শিল্প কলকারখানার শ্রমিকদের মার্চ মাসের বেতন ১৬ এপ্রিলের মধ্যেই পরিশোধের জন্য মালিকদের প্রতি নির্দেশ দিয়েছেন শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান।

সোমবার এক বিবৃতিতে শ্রম প্রতিমন্ত্রী কারখানা মালিকদের প্রতি এ নির্দেশনা প্রদান করেন।

তিনি বলেন, এ নির্দেশ না মানলে বা উক্ত তারিখের মধ্যে বেতন প্রদানে ব্যর্থ হলে সংশ্লিষ্ট মালিকের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

প্রতিমন্ত্রী করোনা পরিস্থিতির ভয়াবহতার কথা মাথায় রেখে সরকারি নির্দেশনা মেনে শ্রমিকদের ঘরে থাকার আহ্বান জানান তিনি।

এদিকে বেতনের দাবিতে গাজীপুরের টঙ্গী এলাকায় লকডাউন ভেঙে ফের বিক্ষোভ করেছেন পোশাক কারখানার শ্রমিকরা। সোমবার সকালে টঙ্গীর বিসিক এলাকার আলাউদ্দিন অ্যান্ড সন্স প্রাইভেট লিমিটেড পোশাক কারখানার কয়েকশ শ্রমিক কারখানার সামনে এ বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন।

কারখানার এক কার্মী বলেন, প্রতিমাসেই এ কারখানা থেকে আন্দোলন করে বেতন নিতে হয়। বিসিক এলাকার সব কারখানা মার্চ মাসের বেতন পরিশোধ করে কারখানা বন্ধ করে দিয়েছে। আমাদের গত ৯ এপ্রিল বেতন দেয়ার কথা ছিল। এদিন আসলে ১৩ এপ্রিল বেতন নেয়ার জন্য আসতে বলা হয়। আজ শ্রমিকরা বেতনের জন্য আসলে বলা হয় ১৬ তারিখে বেতন দেবে।

টঙ্গী পূর্ব থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো আমিনুল ইসলাম জানান, নির্ধারিত তারিখে শ্রমিকরা বেতনের জন্য এসেছিল। পরে কর্তৃপক্ষ ১৬ এপ্রিল বেতন দেয়ার কথা জানালে শ্রমিকরা ফিরে যান।

অন্যদিকে বকেয়া বেতনের দাবিতে রাজধানীর উত্তরায় বিক্ষোভ করছেন পোশাক শ্রমিকরা। সকাল থেকেই তারা উত্তরা তালতলা এলাকায় জড় হন। বেতনের দাবিতে দিতে থাকেন বিভিন্ন স্লোগান।

উত্তর খান থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) হেলালউদ্দিন বলেন, সকাল ১০ টার দিকে কয়েকশ শ্রমিক বেতনের জন্য জড়ো হন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ কাজ করছে।

স্থানীয়রা জানায়, সকাল থেকেই শ্রমিকরা একে একে জড়ো হতে থাকেন। তারা কারাখানায় গিয়ে মালিকপক্ষের কাছে বেতন চান। কর্তৃপক্ষ বেতন দিতে অপরাগতা প্রকাশ করলে তারা রাস্তায় নামেন।

এদিকে একই দাবিতে মিরপুর এক নম্বরে শ্রমিকরা বিক্ষোভ করছেন বলে জানা গেছে।