করোনার প্রাদুর্ভাবের মধ্যে সাধারণ রোগীরা চিকিৎসাসেবা নেয়ার ক্ষেত্রে বিড়ম্বনার শিকার হচ্ছেন। সরকারি-বেসরকারি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ও চিকিৎসকরা সাধারণ অসুস্থ রোগীকে চিকিৎসা না দিয়ে ফেরত পাঠাচ্ছেন। যা মানবাধিকারের চরম লঙ্ঘন। এ অবস্থায় জনগণের চিকিৎসাসেবার অধিকার নিশ্চিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের আহ্বান জানিয়েছে জাতীয় মানবাধিকার কমিশন।

বুধবার (১ এপ্রিল) জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের পরিচালক (প্রশাসন ও অর্থ) কাজী আরফান আশিক মন্ত্রিপরিষদ সচিব বরাবর পাঠানো চিঠিতে এ আহ্বান জানিয়েছেন।

বুধবার রাতে এক বার্তায় মানবাধিকার কমিশন জানায়, করোনা ভাইরাসের লক্ষণযুক্ত রোগীদের চিকিৎসাসেবা প্রদানের পাশাপশি সাধারণ রোগীদের চিকিৎসাসেবা দেয়ার ক্ষেত্রে সরকারের সুস্পষ্ট নির্দেশনা সত্ত্বেও বিভিন্ন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ও চিকিৎসকরা অনেক অসুস্থ রোগীকে চিকিৎসা না দিয়ে ফেরত পাঠাচ্ছেন মর্মে গনমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হচ্ছে যা মানবাধিকার কমিশনের দৃষ্টি আকর্ষণ করছে।

উদাহরণস্বরূপ কমিশন উল্লেখ করে যে, লিভার সিরোসিসে আক্রান্ত স্কুলছাত্র রিফাতকে গত মঙ্গলবার (৩১ মার্চ) দুপুরে শারীরিক সমস্যা প্রকট হওয়ায় তাকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালসহ একে একে চারটি স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠানে নেয়া হয়। কিন্তু কেউ তাকে ভর্তি নেয়নি। শেষ পর্যন্ত সন্ধ্যায় রিফাত মারা যায়। শ্বাসকষ্ট, অ্যাজমা, সর্দি-কাশি, জ্বর ইত্যাদি যে কোনো রোগ নিয়েও অনেকেই চিকিৎসাসেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন মর্মে অভিযোগ উঠছে।

এছাড়া সাধারণ শ্বাসকষ্ট, অ্যাজমা, সর্দি-কাশি, জ্বর নিয়ে বিনা চিকিৎসায় যারা মারা যাচ্ছেন, তারা করোনা আক্রান্ত ছিলেন কিনা তা শনাক্তকরণে বিলম্ব হওয়ায় স্বজনরা তাদের শেষ সময়ে পাশে থাকার ক্ষেত্রে বিড়ম্বনার শিকার হচ্ছেন। গণমাধ্যমে প্রকাশিত এ ধরনের ঘটনা মানবাধিকারের চরম লঙ্ঘন বলে কমিশন মনে করছে।

এ প্রেক্ষাপটে জনগণের চিকিৎসাসেবা পাওয়ার অধিকার নিশ্চিতকল্পে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য মন্ত্রিপরিষদ সচিব ও মন্ত্রিপরিষদ বিভাগকে অনুরোধ জানানো হচ্ছে।